ছায়াযুক্ত স্থানে কি কি সবজি চাষ করা যায়

আমাদের বাড়িতে এমন কোন জায়গা অবশ্যই থাকে যেখানে কোন রোদের আলো পড়ে না। অথবা সূর্যের আলো পড়লেও বেশিক্ষণ থাকে না। এক কথায় আমরা বলতে পারি বাড়ির ছায়াযুক্ত স্থান। আমরা অনেকেই মনে করি এমন ছায়াযুক্ত স্থানে কোন গাছ লাগানো যাবে না বা কোন কিছুর চাষ করা সম্ভব নয়। কিন্তু আমাদের এ ধারণা কি একেবারে ঠিক? আসলেই ঠিক নয়।


বাড়ির ছায়াযুক্ত স্থানে অনায়াসে চাষাবাদ করা যায়। কারণ সব ধরনের সবজি আলোকিত স্থানে শুধুমাত্র ভালো হয় এমনটি নয়। আপনাদের এই ধারণাটি পরিবর্তনের উদ্দেশ্যে আজকে আর্টিকেলটিতে আমরা আপনাদের জানাতে এসেছি ছায়াযুক্ত স্থানে কি কি সবজি চাষ করা যায়।

চলুন তাহলে জেনে নেয়া যাক ছায়াযুক্ত স্থানে কি কি সবজি চাষ করা যায় সে সম্পর্কে বিস্তারিত।

পেজ সূচিপত্রঃ

ছায়াযুক্ত স্থান কাকে বলে?

সাধারণত আমাদের বসতবাড়িতে কোন স্থানে দিনের বেশিরভাগ সময়ে ছায়া থাকে এবং অল্প কিছুক্ষণ সূর্যের আলো বিস্তার করে। ধরুন সূর্য ওঠা থেকে শুরু করে সূর্য ডুবে যাওয়া পর্যন্ত সময়ের মধ্যে তিন থেকে চার ঘন্টা উক্ত স্থানে সূর্যের আলো পড়ে। আর বাকি সম্পূর্ণ সময় জুড়ে ছায়া হয়ে থাকে। এমন স্থানকে বা জায়গাকে আমরা ছায়াযুক্ত স্থান বলতে পারি।


ছায়াযুক্ত স্থান কাকে বলে আশা করি আপনাদের বোঝাতে পেরেছি।

ছায়াযুক্ত স্থানে যে সবজিগুলো চাষ করা যায়

অনেকেই জানেনা যে ছায়াযুক্ত স্থানে কি কি সবজি চাষ করা যায়। যার ফলে বাড়ির এক কোণে এরকম জায়গা অযথা পড়ে থাকে। তাই আপনাদের সুবিধার্থে আজ আমরা জানাতে এসেছি ছায়াযুক্ত স্থানে যে সবজিগুলো চাষ করা যায় সে সম্পর্কে। এটি হতে পারে আপনাদের জন্য লাভজনক।
  • লেটুস পাতাঃ লেটুস পাতা আমরা সবাই মোটামুটি চিনি। এটি যে স্থানে লাগানো হয় সেখানে তিন ঘন্টা সূর্যের আলো থাকলেই যথেষ্ট। এর মধ্যেই এর ফলন ভালো হয়ে থাকে।
  • ব্রকলিঃ বর্তমান বাজারে খুবই পরিচিত একটি সবজি হলো ব্রকলি। ছায়াযুক্ত অঞ্চলে ব্রকলি ভালো আবাদ হয়ে থাকে।
  • আলুঃ নিত্যদিনের সবজি হল আলু। কম আলোতে আলুর ফলন ভালো এবং লাভজনক হয়ে থাকে।
  • রসুনঃ রসুন সাধারণত নিম্ন তাপমাত্রার অঞ্চলে ভালো জন্মায়। তাই ছায়াযুক্ত জায়গায় রসুন হতে পারে চাষের জন্য উপযোগী।
  • গাজরঃ প্রায় সকলের পছন্দের একটি সবজি হলো গাজর। দুই থেকে তিন ঘণ্টার রৌদ্র পেলেই গাজরের ফলন ভালো হয়।
  • ফুলকপিঃ ফুলকপি চাষ করার জন্য অতিরিক্ত সূর্যের আলোর প্রয়োজন হয় না। তাই ছায়া ঘেরা জায়গায় ফুলকপি চাষাবাদ করা যেতে পারে।
  • পালং শাকঃ অনেকগুলো ভিটামিনের উৎস হলো পালং শাক। এই পালং শাক দ্রুত বড় হয় অল্প সূর্যের আলো পেলেই। তাই বাড়ির ছায়া অঞ্চলে পালং শাক লাগাতে পারেন।
উপরোক্ত সবজিগুলো ছায়াযুক্ত স্থানে খুব ভালোভাবে চাষাবাদ করা যেতে পারে। আশা করছি ছায়াযুক্ত স্থানে কি কি সবজি চাষ করা যায় আপনারা বুঝতে পেরেছেন।

ছায়াযুক্ত স্থানে কি কি ফুল চাষ করা যায়?

ছায়া ঘেরা জায়গায় শুধু সবজি নয় এমন অনেক কিছুই চাষ করা যায় যা সম্পর্কে আমাদের ধারণা নেই।এতক্ষণ আমরা আলোচনা করেছি ছায়াযুক্ত স্থানে কি কি সবজি চাষ করা যায় এ বিষয়টি নিয়ে। চলুন এবার তাহলে আরেকটু আলোচনা করা যাক ছায়াযুক্ত স্থানে কি কি ফুল চাষ করা যায় এ বিষয়ে।
ছায়া যুদ্ধ স্থানে যে ফুলগুলো চাষ করা যায় তা নিম্নরূপ-
  • অপরাজিতা ফুল
  • সন্ধ্যা মালতি
  • লিলি
  • দোলনচাঁপা
  • পানিকা
  • লুপিন
  • গেরি
  • ডে কমল
এই ফুলগুলো কম সূর্যের আলোয় বা ছায়ায় ভালো ফোটে। ফাকা জায়গা যদি বাগানের ভেতর হয়ে থাকে তাহলে এগুলো অনায়াসে লাগানো যেতে পারে। এতে করে বাগানের সৌন্দর আরো বৃদ্ধি পাবে। 

ছায়াযুক্ত স্থান ফেলে না রেখে যে গাছগুলো লাগাতে পারেন

যারা মনে করেন ছায়া ঘেরা জায়গায় কিছু লাগানো সম্ভব নয় ।এই চিন্তা করে ফেলে রাখেন। তাদের উদ্দেশ্যে কিছু উপায় আজ আমরা উল্লেখ করতে যাচ্ছি। কিছু গাছ রয়েছে যেগুলো ছায়ায় দ্রুত বাড়ে এবং দেখতেও ভালো লাগে। ছায়াযুক্ত স্থান ফেলে না রেখে যে গাছগুলো লাগাতে পারেন তা নিচে উল্লেখ করা হলো-
  • বাহারি মান কচু
  • ফার্ন
  • কালাথিয়া
  • জেড প্লান্ট
  • মানিপ্লান্ট
  • কালাডিআম বা বাহারি পাতা
  • আগেলিয়া
  • অক্সালিস
  • অর্ণামেন্টাল ঘাস
  • কলিয়াস
  • বকফুল
উপরোক্ত গাছগুলো দেখতে সুন্দর এবং বাড়ির পরিবেশকে ফুটিয়ে তুলতে সহায়তা করে। তাই ছায়া অঞ্চলে এই গাছগুলো লাগালে ফাঁকা স্থানটি ও পূর্ণ হয়ে যায় এবং জায়গাটির শোভা বৃদ্ধি পাবে।

সর্বদা আলোকিত স্থান বলতে কী বোঝায়?

যে জায়গায় সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত সম্পূর্ণভাবে আলো বিস্তার করে থাকে সে সকল জায়গাকে সর্বদা আলোকিত স্থান বলা হয়। এরুপ স্থান হতে পারে বাড়ির ভেতরে কোন জায়গায়। আবার হতে পারে বাইরে। যেমন গ্রামাঞ্চলে যে সকল জায়গায় ধান, গম, ভুট্টা ইত্যাদি সহ নানা ধরনের ফসল উৎপাদন করা হয় এরকম জায়গা। এই জায়গা গুলোতেই সারাদিন জুড়ে সূর্যের আলো বিস্তার করে থাকে। আর এই সকল জায়গায় সব ধরনের চাষাবাদ করা সম্ভব। এক কথায় আবাদ করার জন্য উপযুক্ত স্থান।

সর্বদা আলোকিত স্থান বলতে কী বোঝায় আশা করি বুঝতে পেরেছেন।

সর্বদা সূর্যের আলোয় কি কি চাষ করা যায়?

আজকের আলোচনার মূল বিষয় ছিল আমাদের ছায়াযুক্ত স্থানে কি কি সবজি চাষ করা যায়। এর সাথে আপনাদের এ বিষয়টি নিয়েও জানাবো যে সর্বদা সূর্যের আলোয় কি কি চাষ করা যায়। কারণ প্রতিটি মানুষের এসব বিষয় সম্পর্কে অবগত নয়। তাহলে জেনে নিন-
  1. ক্যাপসিকামঃ বর্তমান ক্যাপসিকাম এর চাহিদা অনেক বেশি। কারণ এটি ফাস্টফুড আইটেম থেকে শুরু করে সকলেরই পছন্দের এবং প্রয়োজনীয়। অতিরিক্ত সূর্যের আলোয় ক্যাপসিকাম খুব ভালো ফলন দেয়।
  2. স্ট্রবেরিঃ স্ট্রবেরি বর্তমানে খুবই জনপ্রিয় একটি ফল। পর্যাপ্ত সূর্যের আলোয় স্ট্রবেরি চাষ ভালো হয়ে থাকে। কিন্তু যেখানে পর্যাপ্ত আলো বিস্তার করে সে স্থানগুলো যথেষ্ট ফাঁকা হয় যার ফলে ঝড়-বৃষ্টিতে স্ট্রবের অধিক হারে নষ্ট হয়ে যায়।
  3. টমেটোঃ টমেটো চাষাবাদ হতে পারে সর্বদা সূর্যের আলোয় খুবই ভালো। কারণ আট থেকে দশ ঘন্টা সম্পূর্ণভাবে রৌদ্র পেলে টমেটো ফলন ভালো দেয়।
  4. কাঁচা মরিচঃ প্রচন্ড রোদে বা অধিক তাপমাত্রায় কাঁচা মরিচ বেশি পরিমাণে হয়ে থাকে। তাই পর্যাপ্ত আলোয় মরিচ আবাদ করা যেতে পারে।

ছায়াযুক্ত স্থানে কি কি সবজি চাষ করা যায়-শেষ কথা

চাষাবাদ সম্পর্কে জ্ঞান থাকলেও হয়তো আমরা এ সম্পর্কে পূর্ণাঙ্গ বিষয়গুলো জানিনা। অনেকেই ভাবে ছায়াযুক্ত স্থান কোন কাজের নয়, তাই পরিত্যক্ত অবস্থায় থেকে যায়। আজকে আমরা ছায়াযুক্ত স্থানে কি কি সবজি চাষ করা যায় সে সম্পর্কে আপনাদের স্পষ্ট ধারণা দিয়েছি। উল্লেখিত সবজিগুলো যত্ন এবং পরিচর্যার মাধ্যমে ছায়াযুক্ত স্থানে চাষ করা যেতে পারে এবং আশা থেকেও কাঙ্খিত ফল পাওয়া যেতে পারে। এছাড়াও ছায়া ঘেরা স্থানে অন্য যা কিছু চাষাবাদ করা সম্ভব সে সম্পর্কেও আপনাদের ধারণা দেয়ার চেষ্টা করেছি।

আশা করি আর্টিকেলটি আপনাদের ভালো লেগেছে। এমন আরো অজানা অনেক তথ্য জানতে আমাদের ওয়েবসাইটটি ভিজিট করুন। নিজে জানুন অন্যকে জানতে সহায়তা করুন। লেখাতে কোন ভুল হলে ক্ষমা করে দেবেন। কোন বিষয়ে আপনাদের জানার আগ্রহ থাকলে কমেন্টে জানিয়ে দেবেন। আমরা উত্তর দেয়ার চেষ্টা করব। ধন্যবাদ।


Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url