ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ ও এর প্রতিকার

ডেঙ্গু জ্বর এই রোগটি আমাদের সকলের কাছে পরিচিত। ডেঙ্গু জ্বরকে স্বাভাবিক জ্বর ভেবে কোন ভাবে উপেক্ষা করা ঠিক নয়। কারণ, এটি খুবই ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে। এই জ্বরটি প্রাণঘাতী। তাহলে বুঝতেই পারছেন এ বিষয়ে খুবই সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

ডেঙ্গু জ্বরের কিছু নির্দিষ্ট লক্ষণ দেখা দিয়ে থাকে। তাই আমাদেরকে ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ ও এর প্রতিকার সম্পর্কে বিশেষভাবে জ্ঞান অর্জন করতে হবে। আজকের আলোচনার মূল বিষয় হলো ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ ও এর প্রতিকার। চলুন তাহলে জেনে নেই ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ ও এর প্রতিকার সম্পর্কে বিস্তারিত।

পেজ সূচিপত্রঃ

ডেঙ্গু জ্বর সম্পর্কে মোটামুটি সবাই অবগত। কিন্তু কি কারনে ডেঙ্গু জ্বর হয় এ বিষয়টি হয়তো অনেকেরই অজানা। আমরা আপনাদের জানাবো কি কারণে ডেঙ্গু জ্বর হয়।


ডেঙ্গু জ্বর মূলত হয়ে থাকে এডিস মশার কামড়ে। যদি পরিবেশে অবস্থিত যেকোনো ধরনের ভাইরাস এডিস মশার মধ্যে সংক্রমিত হয় শুধুমাত্র তখনই এই এডিস মশার কামড়ে ডেঙ্গু জ্বর হয়ে থাকে। ডেঙ্গু জ্বরের বাহক হিসেবে কাজ করে স্ত্রী এডিস মশা। এডিস মশা সাধারণ মশার তুলনায় আকারে বড় হয়ে থাকে।

ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ বা উপসর্গগুলো কি কি?

ভাইরাস ঘটিত ও মশা বাহিত রোগ হল ডেঙ্গু জ্বর। তাই আমাদের প্রত্যেককেই ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ বা উপসর্গ গুলো কি কি তা জানা একান্ত প্রয়োজন। ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ ও এর প্রতিকার সম্পর্কে না জানলে এর মোকাবেলা করা আমাদের জন্য মুশকিল হয়ে দাঁড়াবে। নিচে উপসর্গ গুলো উল্লেখ করা হলো-
  1. শ্বাস-প্রশ্বাসের গতি বৃদ্ধি পাওয়া
  2. ঘন ঘন বমি হওয়া
  3. নিয়ন্ত্রণহীন পায়খানা
  4. অস্বাভাবিক পেটের ব্যথা
  5. অস্থিরতা বোধ
  6. পায়খানা ও প্রসাবের সাথে রক্তপাত হওয়া
  7. প্রচন্ড মাথা ব্যথা হওয়া
  8. ত্বকে ফুসকুড়ি ওঠা
  9. উচ্চমাত্রায় জ্বর 
  10. ক্ষুধামন্দা
  11. পেশীতে ব্যথা অনুভূত হওয়া
  12. নিম্ন রক্তচাপ
  13. চোখের পিছনের অংশে ব্যথা
  14. নাক ও মাড়ি থেকে রক্তপাত হওয়া
  15. শীতলতা অনুভব করা
উপরোক্ত উপসর্গ গুলো যদি দেখা দেয় তাহলে বুঝে নিতে হবে যে আপনি ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়েছেন। তৎক্ষণাৎ চিকিৎসকের নিকট যেতে হবে। কোনভাবেই এই উপসর্গগুলো অবহেলা করা যাবে না।

ডেঙ্গু জ্বর কতদিন পর্যন্ত স্থায়ী থাকে?

আপনাদের কি জানা আছে ডেঙ্গু জ্বর কতদিন পর্যন্ত স্থায়ী থাকে? না জানলে এক্ষুনি জেনে নিন। কারণ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হলেও অজান্তে স্বাভাবিক জ্বর মনে করে মৃত্যুর দিকে অগ্রসর হওয়া যাবেনা।

ডেঙ্গু জ্বর সাধারণত তিন থেকে ছয় দিন পর্যন্ত স্থায়ী থাকে। প্রথম দিকে তেমন কোন উপসর্গ দেখা না গেলেও এর লক্ষণগুলো বেশি বোঝা যায় জ্বর ভালো হওয়ার পরবর্তী সময়ে। আশঙ্কা পূর্ণ সময় থাকে জ্বর সেরে যাওয়ার ৪৮ থেকে ৭২ ঘন্টা পর্যন্ত। এ জ্বরের গভীরতম জটিলতা গুলো দেখা দেয়ার সম্ভাবনা থাকে এ সময়। তাই জ্বর ভালো হয়ে যাওয়ার পর মনে করা যাবে না যে ডেঙ্গু জ্বর থেকে বেঁচে গেছেন। তখন আরো বেশি সতর্ক থাকা উচিত। কারণ ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ ও এর প্রতিকার সম্পর্কে সর্বদাই সজাগ থাকতে হবে।

ডেঙ্গু জ্বর হলে কোন খাবারগুলো খেতে হয়?

শুধুমাত্র ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ ও এর প্রতিকার সম্পর্কে জানলে হবে না। ডেঙ্গু জ্বর হলে কোন খাবার গুলো খেতে হয় এই বিষয়েও লক্ষ্য রাখতে হবে। চলুন তাহলে জেনে নেয়া যাক ডেঙ্গু জ্বর হলে কোন খাবার গুলো খেতে হয়।
  1. কমলাঃ কমলাতে ভিটামিন সি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বিদ্যমান রয়েছে যা জ্বর নিয়ন্ত্রণে রাখতে সহায়তা করে থাকে। তাই ডেঙ্গু জ্বর হলে কমলা খাওয়া উচিত। 
  2. ডাবঃ ডাবে রয়েছে পটাশিয়াম। ডেঙ্গু জ্বর হলে শরীরে পানি শূন্যতা দেখা দিয়ে থাকে। পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান না করলে ডিহাইড্রেশনের দেখা দেয়। ডাবের পানি এক্ষেত্রে অনেক উপকারী। শরীরে পানির চাহিদা পূরণ করে থাকে ডাবের পানি।
  3. ব্রকলিঃ ব্রকলিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন কে। ডেঙ্গু জ্বর হলে শরীরে প্লাটিলের সংখ্যা হ্রাস পায়। আর ভিটামিন এ প্লাটিলেট সংখ্যা বৃদ্ধি করতে সহায়ক। তাই ব্রকলি হতে পারে ডেঙ্গু জ্বরের ক্ষেত্রে অন্যতম একটি খাবার।
  4. মেথিঃ ডেঙ্গু জ্বর হলে শারীরিক বিভিন্ন যন্ত্রণা বৃদ্ধি পায়। আর মেথি যন্ত্রণা কমাতে সহায়ক। তাই মেথি গ্রহণ করা যেতে পারে।
  5. ডালিমঃ ডেঙ্গু জ্বরের জন্য ডালিম হতে পারে অন্যতম একটি ফল। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আয়রন যা ক্লান্তি বোধ দূর করে এবং শরীরে শক্তি যোগায়।
  6. হলুদঃ হলুদ শরীরে মেটাবলিজম বৃদ্ধি করতে সহায়ক। তাই ডেঙ্গু জ্বরের সময় দুধের সাথে সামান্য হলুদ মিশিয়ে খাওয়া যেতে পারে। এটি দ্রুত জ্বর কমাতে সহায়তা করে।
  7. পেঁপে পাতার জুসঃ পেঁপে পাতা এনজাইম সমৃদ্ধ খাবার যা শরীরে হজম শক্তি বৃদ্ধি করে। তাই পেঁপে পাতার জুস হতে পারে একটি উত্তম খাবার।
  8. টমেটোঃ টমেটোতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি। আর ভিটামিন সি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে।
ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীদের জন্য উপরোক্ত খাবার গুলো হতে পারে রোগ নিরাময়ের জন্য অন্যতম।

ডেঙ্গু জ্বর কি ছোঁয়াচে?

ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ ও এর প্রতিকার জানা যেমন গুরুত্বপূর্ণ ঠিক তেমনি ভাবে এই বিষয়টিও আমাদের জানতে হবে ডেঙ্গু জ্বর কি ছোঁয়াচে নাকি ছোঁয়াচে নয়। কথা না বাড়িয়ে মূল কথায় আসি।

কোন ব্যক্তি যদি ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে থাকে তাহলে তার প্রতিটি ব্যবহৃত জিনিস অন্য কোন ব্যক্তি ব্যবহার করতে পারবে। আক্রান্ত ব্যক্তির সাথে এক বিছানায় অবস্থান করা যাবে। এতে করে কোন সমস্যা হবে না। তাহলে আমরা এক কথায় বলতে পারি ডেঙ্গু জ্বর ছোঁয়াচে নয়। তাই ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীর সাথে অস্বাভাবিক কোন আচরণ করা যাবে না। এতে করে আক্রান্ত ব্যক্তি চরমভাবে মানসিক বিপর্যস্ত হতে পারে।

ডেঙ্গু জ্বরের প্রতিকার

রোগ থাকবে কিন্তু আরোগ্য লাভের কোন ব্যবস্থা থাকবে না এমনটি আসলে হয় না। ডেঙ্গু ভাইরাসজনিত একটি রোগ। কিন্তু ডেঙ্গু জ্বরের প্রতিকার রয়েছে। ডেঙ্গু জ্বরের প্রতিকার সম্পর্কে জেনে নিন।
  • ডেঙ্গু জ্বর হলে পর্যাপ্ত বিশ্রামে থাকতে হবে
  • ডেঙ্গু জ্বর হলে শরীরে মিনারেলের ঘাটতি দেখা । তাই প্রচুর পরিমাণে তরল জাতীয় খাবার গ্রহণ করতে হয়। সেটি হতে পারে ফলের জুস, ডাব, বিশুদ্ধ পানি ইত্যাদি। 
  • জ্বরের মাত্রা কমানোর জন্য ব্যথা নাশক ওষুধ যেমন ক্লোফেনাক,অ্যাসপিরিন এ জাতীয় ঔষধ সেবনে চিকিৎসকের সম্পূর্ণ নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।
  • জ্বর কমানোর ক্ষেত্রে শুধুমাত্র প্যারাসিটামল গ্রহণ করা যাবে।
  • আক্রান্ত রোগীকে অতিরিক্ত পরিশ্রম করা যাবে না।
  • চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোন ঔষধ গ্রহণ করা যাবে না।
  • জ্বর অবস্থায় বাইরের খোলামেলা পরিবেশে চলাচল না করাই ভালো।
  • অবশ্যই মশারির ভেতরে অবস্থান করতে হবে।

ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ ও এর প্রতিকার-শেষ কথা

ডেঙ্গু জ্বর নিঃসন্দেহে একটি সাংঘাতিক রোগ। এই জ্বরকে সাধারণ জ্বর ভেবে এড়িয়ে চলা মোটেও ঠিক নয়। কারণ প্রতিবছর ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে অনেকেই প্রাণ হারাচ্ছে। এ সকল কিছু বিবেচনা করে এ বিষয়টিকে গুরুত্ব সহকারে প্রতিটি ব্যক্তিকে দেখা উচিত। কারণ এটি স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। তাই ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ ও এর প্রতিকার সম্পর্কে নিজে জানুন এবং অন্যকে জানতে সহায়তা করুন।

আজকের বিষয়টি ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনার আমার মত অনেক মানুষ রয়েছে যারা এই বিষয়গুলো জানেনা। তাই তথ্যগুলো শেয়ার করুন এর ফলে অজস্র মানুষ এই রোগ থেকে সচেতন থাকবে এবং মুক্তি পাবে। ধন্যবাদ।



Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url