হার্ট ভালো রাখার উপায়

আমাদের শরীরের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ হলো হৃদপিণ্ড বা হার্ট। হার্ট ভালো না থাকলেই আমাদের সর্বনাশ অনিবার্য। একবার ভাবুন তো আমাদের হৃদপিণ্ড বন্ধ হয়ে গেলে আমরা বাঁচবো কি করে? তাহলে বুঝতেই পারছেন সুস্থ ভাবে বেঁচে থাকতে হলে অবশ্যই এই হৃদপিণ্ডকে ভালো রাখতে হবে। তাহলে হার্ট ভালো রাখার উপায় সম্পর্কে আমাদেরকে জানতে হবে।


এখন আসি মূল কথায়। হার্ট ভালো রাখার উপায় কি? এ বিষয়ে কি আপনাদের সকলের জ্ঞান রয়েছে। না, নেই। আমাদের মধ্যে এমন অনেক মানুষ রয়েছে যারা এ বিষয় নিয়ে চিন্তাই করে না। তাই আজকের আর্টিকেলটিতে আমরা আপনাদের হার্ট ভালো রাখার উপায় সম্পর্কে জানাতে এসেছি। বিস্তারিত জানতে হলে সম্পূর্ণ লেখাটি মনোযোগ দিয়ে পড়তে থাকুন।

আজকের আলোচনার বিষয়বস্তু নিচে উল্লেখ করা হলো-

পেজ সূচিপত্রঃ

মানবদেহে হৃৎপিণ্ড হলো একটি পেশী বহুল অঙ্গ যা সংবহন তন্ত্রের দ্বারা রক্ত পাম্প করার মাধ্যমে মানুষের শরীরে রক্ত সরবরাহ করে থাকে। এই সরবরাহকৃত রক্ত হয়ে থাকে অক্সিজেন সংযুক্ত।মানবদেহের রক্তের এই পাম্পকে বলা হয়ে থাকে হৃদয় স্পন্দন। এই হৃদয় স্পন্দনের আবার একটি মাত্রা থাকে। যেমন-যেকোনো প্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রে প্রতি মিনিটে ৬০ থেকে ১০০ বার হৃদয় স্পন্দন এটি স্বাভাবিক। হৃদপিন্ডের আকার হয়ে থাকে একটি হাতের বদ্ধ মুষ্টির সমান।

হার্ট বা হৃৎপিণ্ড কি আশা করি আপনাদের বোঝাতে পেরেছি।

হার্ট ভালো আছে কিনা কিভাবে বুঝবেন

হার্ট ভালো আছে কিনা তা জানতে হলে আমাদেরকে বেশ কিছু জিনিস লক্ষ্য করতে হবে। অনেক সময় এমন হয় আমাদের হার্ট ভালো থাকে না কিন্তু আমরা এ বিষয়টি ঠিক বুঝে উঠতে পারি না। কিন্তু প্রতিটি মানুষের জন্য এ বিষয়গুলো জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, আপনি যদি না জানেন আপনার হৃদপিণ্ড সুস্থ আছে কিনা তাহলে তাহলে হার্ট ভালো রাখার উপায় কিভাবে বের করবেন? চলুন তাহলে জেনে নেয়া যাক হার্ট ভালো আছে কিনা কিভাবে বুঝবেন।
  • হৃদয় স্পন্দনের তারতম্য মনে হলে বুঝতে হবে হার্ট ভালো নেই।
  • অতিরিক্ত ঘেমে যাওয়া হার্টের সমস্যার লক্ষণ
  • অল্পতেই ক্লান্তি বোধ হওয়া এবং মাথা ঝিমঝিম করা হার্টের সমস্যার লক্ষণের অন্তর্ভুক্ত
  • অনেক সময় দেখা যায় বুকের চাপ অনুভূত হয় এরকম হলে বুঝে নিবেন হার্টের সমস্যা রয়েছে।
  • অনেকেরই দেখা যায় সুস্থ স্বাভাবিক থাকা অবস্থা থাকতেও শ্বাসকষ্টের সমস্যা হয়ে থাকে। এরূপ হলে বুঝে নেবেন আপনাকে চিকিৎসবে পরামর্শ নেওয়া উচিত।
উপরোক্ত সমস্যা গুলো যদি আপনার মাঝে পরিলক্ষিত হয় তাহলে বুঝে নেবেন আপনার হার্ট বা হৃৎপিণ্ড ভালো নেই। কারণ এ সমস্যাগুলো পরিলক্ষিত হয় হৃদপিন্ডের অসুস্থতার কারণে। আশা করি বুঝতে পারবেন আপনাদের হার্ট ভালো ও সুস্থ আছে কিনা।

হার্টের সমস্যা গুলো কি কি?

হার্টে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে। হৃদপিণ্ড যে শুধুমাত্র একটি সমস্যায় আক্রান্ত হয়ে থাকে এমনটি নয়। হৃদপিণ্ডে নানা ধরনের সমস্যা দেখা দিয়ে থাকে। 

হৃদপিন্ডের দুই ধরনের সমস্যা হয়ে থাকে।
  1. জন্মগত সমস্যা ও
  2. জন্মের পরবর্তীকালে সমস্যা
জন্মগত সমস্যা আসলে শিশুদের হয়ে থাকে। যাকে বলা হয় শিশু হৃদরোগ। অনেক সময় দেখা যায় অনেক শিশুর মায়ের পেটে থাকাকালীন অবস্থা থেকেই হার্টের সমস্যা থাকে।


অন্যদিকে, জন্মের পরবর্তীকালে সমস্যা বলতে প্রাপ্তবয়স্কদের যে সকল সমস্যার একটি দেখা দেয় সেগুলোকে বলা হয়। এখন মূল কথায় আসি। হার্টের সমস্যাগুলো কি কি সেগুলো নিয়ে একটু আলোচনা করি।
আমরা সকলেই হার্ট অ্যাটাক সম্পর্কে অবগত। এই হার্ট অ্যাটাক হয়ে থাকে হার্টের যে রক্তনালী রয়েছে তার সমস্যা হলে। রক্ত সরবরাহ প্রক্রিয়াতে কোনরকম বিঘ্ন ঘটে থাকলে ফলে হার্ট অ্যাটাক হয়ে থাকে। চিকিৎসকরা এই সমস্যার সমাধানের জন্য হার্টের রক্তনালীতে কোন ব্লক আছে কিনা তা খুঁজে বের করে এনজিওগ্রাম এর মাধ্যমে।
অন্যদিকে, হার্টের মধ্যে চারটি ভাল্ব থাকে। এর যেকোনো একটি সমস্যা হলে তখন মানুষ অসুস্থ হয়ে যায়। হার্টের সাধারণত উক্ত সমস্যাগুলো হয়ে থাকে।

হার্ট ভালো রাখতে যেসব খাবার খাবেন

হার্ট এতটাই গুরুত্বপূর্ণ যে এক মুহূর্তেও যদি এর কাজ বন্ধ থাকে তবে মানুষ বাঁচতে পারবে না। তাহলে বুঝতে পারছেন তো হার্ট কতটা গুরুত্বপূর্ণ। আর এটি ভালো রাখার জন্য প্রয়োজন ভালো খাদ্যাভ্যাস এবং লাইফস্টাইল এর। এমন অনেক খাবার রয়েছে যেগুলো হার্টকে সুস্থ রাখে। আর এ বিষয়গুলো আমাদের প্রত্যেকেরই জানা দরকার নিজের সুস্থ থাকার জন্য। তাহলে চলুন হার্ট ভালো রাখতে যেসব খাবার খাবেন সে সম্পর্কে জেনে নেই।

  1. মিষ্টি আলুঃ মিষ্টি আলুতে রয়েছে ফাইবার, খনিজ, ভিটামিন ও পটাশিয়াম। পটাশিয়াম রক্ত সঞ্চালনকে ঠিক রেখে মানুষের দেহে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে। তাই হার্ট ভালো রাখার উদ্দেশ্যে মিষ্টি আলু খাওয়া প্রয়োজন।
  2. বিটঃ বিটকে বলা হয় মূল জাতীয় খাবার। এতে রয়েছে নাইট্রিক অক্সাইড যা মানব দেহে রক্তনালীকে প্রসারিত করে থাকে। যার ফলে হার্ট ভালো থাকে।
  3. বাদামঃ বাদাম নিঃসন্দেহে একটি উপকারী খাবার। বাদাম শরীরের কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখে যার ফলে হার্ট সুস্থ থাকে।
  4. শাকসবজিঃ শাকসবজি হলো অসংখ্য ভিটামিন,খনিজ এ ভরপুর। যা শরীরের বিভিন্ন পুষ্টির অভাব মেটায় রক্ত পরিষ্কার রাখে। হৃৎপিণ্ডকে ভালো রাখতে শাক সবজির গুণাবলীর শেষ নেই।
  5. কফিঃ কফি একটি তিক্ত পানীয় জাতীয় খাবার। কিন্তু কফি খেলে স্ট্রোক ঝুঁকি হ্রাস পায় এবং হার্ট ফেইলিওর থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।
  6. জাম্বুরাঃ জাম্বুরা পটাশিয়াম, কোলিন এবং লাইকোপেনযুক্ত খাবার যা উচ্চ রক্তচাপকে হ্রাস করে হৃদপিণ্ডকে ভালো রাখে।
  7. ডুমুরঃ ডুমুর একটি ক্যালসিয়াম যুক্ত খাবার। হার্ট কে সুস্থ রাখার ক্ষেত্রে ডুমুর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

হার্ট কে ভালো রাখতে যে সব খাবার খাবেন না


এমন কিছু খাবার রয়েছে যেগুলো হার্টকে সুস্থ থাকার ক্ষেত্রে বাধাগ্রস্ত করে থাকে। এ বিষয়টি আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। হার্ট কে ভালো রাখতে যেসব খাবার খাবেন না তা নিচে উল্লেখ করা হলো-
  1. ভাজা ও তৈলাক্ত খাবারঃ  অতিরিক্ত ভাজা ও তৈলাক্ত খাবারে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ফ্যাট। বেশি মাত্রার ফ্যাট হার্টের জন্য ক্ষতিকর।
  2. ডিমের কুসুমঃ ডিমের কুসুমে রয়েছে অতিমাত্রার কোলেস্টরেল যা হার্টের জন্য মোটেও ভালো নয়।
  3. লবণ ও চিনিঃ লবণ ও চিনি আমাদের দেহের জন্য অনেক  ক্ষতিকর। এ দুটোই হার্টের সমস্যা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। তাই খাবার তালিকা থেকে এগুলো বাদ দেয়া শ্রেয়।
  4. পাউরুটিঃ পাউরুটিতে থাকে অতিমাত্রার সোডিয়াম যা রক্তচাপ তৈরি করে। এর ফলে হার্টের সমস্যা বৃদ্ধি পায়।
  5. কোমল পানীয়ঃ বিভিন্ন ধরনের কোমল পানীয় জাতীয় খাবারে বিভিন্ন ক্ষতিকারক উপাদান মিশ্রিত করা থাকে যা হার্ট এ গিয়ে অ্যাটাক করে থাকে।
  6. আইসক্রিমঃ আইসক্রিম শরীরের সুগার লেভেল বৃদ্ধি করে থাকে। যার ফলে হার্টের সমস্যা দেখা দিতে পারে।
  7. চর্বিযুক্ত খাবারঃ চর্বিযুক্ত খাবার খেলে কোলেস্টেরলের বৃদ্ধি পায়। এর ফলে রক্তনালীতে ব্লক দেখা দিতে পারে। আর ব্লক দেখা দিলে হৃদয় স্পন্দন এর তারতম্য হয়ে থাকে।

হার্ট ভালো রাখতে ব্যায়াম

হার্ট ভালো রাখার জন্য একজন ব্যক্তিকে অবশ্যই পরিশ্রম করতে হবে। কারণ, কাজ বা ব্যায়াম করলে হার্টের গতি ভালো থাকে। হার্ট ভালো রাখতে ব্যায়াম খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ব্যায়াম বলতে অনেক কিছুই বোঝায়। যেমন-সাইকেল চালানো, সাঁতার কাটা, নিয়মিত হাটা ইত্যাদি। এখন কথা হল সব বয়সের মানুষ সাইকেল চালাতে পারবে না আবার সাঁতারও কাটতে পারবে না। কিন্তু সকল বয়সের মানুষের পক্ষে নিয়মিত হাটা সম্ভব। এটিও একটি উত্তম ব্যায়াম। হাটার ফলে হার্টের রেট বৃদ্ধি পায় এবং শরীর সুস্থ থাকে।
তাই হার্ট ভালো রাখতে ব্যায়াম উত্তম একটি মাধ্যম। হার্ট ভালো রাখার উপায় এর মধ্যে এটি অন্যতম।

হার্ট ভালো রাখার উপায়-শেষ কথা

আমাদের বেঁচে থাকার কারণ হলো আমাদের হৃদপিণ্ড অবিরত চলছে। কিন্তু যে কোন কিছুর যত্ন না করলে সমস্যা দেখা দিবে এটাই স্বাভাবিক। এই ক্ষেত্রে বিপরীত কিছু নয়। সুস্থ ও স্বাভাবিকভাবে বেঁচে থাকার জন্য ও আমাদের হৃদপিণ্ডকে ভালো রাখার জন্য আমাদের ভালো খাদ্যাভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। যা আমাদের হৃদপিন্ডের জন্য ক্ষতিকর সেগুলোকে এড়িয়ে চলতে হবে। এক কথায় হার্ট ভালো রাখার উপায় আমাদের  বের করতে হবে।কারণ আমাদের সামান্য অবহেলার কারণে আমরা মৃত্যু শরণাপন্ন হতে পারি।

আজকের আর্টিকেলটিতে হার্ট ভালো রাখার উপায় সম্পর্কে আপনাদের নানা প্রয়োজনীয় তথ্য দেয়ার চেষ্টা করেছি। উপকৃত হলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন এবং এমন আরো গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটি ভিজিট করুন। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন এই কামনা করি। ধন্যবাদ।




Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url